ঢাকা, রবিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ৬ ফাল্গুন ১৪২৪

প্রচ্ছদ » দেশের খবর » বিস্তারিত

স্বামীর পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় দুই গৃহবধূ খুন, গ্রেফতার ১

২০১৮ ফেব্রুয়ারি ১৪ ১৬:৫১:৫৩
স্বামীর পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় দুই গৃহবধূ খুন, গ্রেফতার ১

নওগাঁ প্রতিনিধি : নওগাঁয় স্বামীর পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় দুই গৃহবধূ খুন হয়েছে। ঘটনা দুটি ঘটেছে জেলার ধামইরহাটে ও মহাদেবপুরে। পুলিশ এক ঘাতক স্বামীকে গ্রেফতার করলেও অপর ঘাতক পালিয়ে গেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ধামইরহাট উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের আব্দুর রহমান ও তার স্ত্রী পারভীন বেগম মঙ্গলবার রাতের খাবার খেয়ে একটি ঘরে ঘুমিয়ে পড়ে। এরপর আব্দুর রহমান তার স্ত্রীকে ঘুমন্ত অবস্থায় পাঁজরে ছুরিকাঘাত করে এবং মুখে কাপড় ঢুকিয়ে দেয়। যাতে কোন প্রকার শব্দ না করতে পারে। এ সময় পাশের ঘরে থাকা নিহতের কন্যা জান্নাতুন ও তার বোন মায়ের গোঙ্গানি শুনতে পেয়ে ঘরে ছুটে এসে দেখে তার মায়ের নাক মুখ ও বাম পাঁজর থেকে প্রচুর রক্তক্ষরণ হচ্ছে। তাদের দুই বোনের চিৎকার শুনে প্রতিবেশিরা এগিয়ে এলেও ঘটনাস্থলেই পারভীন বেগম মারা যান। ঘটনার পর পরই ঘাতক স্বামী আব্দুর রহমান পালিয়ে যায়।

আব্দুর রহমান উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের কোবাদ মুন্সীর পুত্র। খবর পেয়ে রাতেই পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

এ ব্যাপারে নিহতের বাবা জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার তিলকপুর কানুছপাড়া গ্রামের মোঃ আইয়ুব হোসেন বলেন, তার জামাই দীর্ঘদিন ধরে ঢাকায় রিক্সা চালাত। সেখানে একটি মেয়ের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে এবং পারভীনকে তালাক দিয়ে ওই মেয়েকে বিয়ে করতে চায়। গত ১৫দিন আগে সে ঢাকা থেকে বাড়িতে এসে পারভীনে ওপর নির্যাতন শুরু করে। গত ৬ ফেব্রুয়ারি হাসুয়া দিয়ে তার মেয়েকে জবাই করার জন্য আব্দুর রহমান আক্রমণ চালায়। সেই যাত্রার নিহতের জামাইয়ের বাধার কারণে তার মেয়েকে সে হত্যা করতে পারেনি।

এ ব্যাপারে ধামইরহাট থানার অফিসার ইনচার্জ মুঃ রকিবুল ইসলাম রকিব বলেন, খবর পেয়ে রাতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য লাশ নওগাঁ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘাতক আব্দুর রহমানকে গ্রেফতারের জন্য জোর প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে।

অপরদিকে মঙ্গলবার রাতে জেলার মহাদেবপুর উপজেলার কৃষ্ণপুর গ্রাম থেকে গৃহবধূ পারুল আখতারের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত পারুল আখতারের স্বামী নাসির উদ্দিন তার স্ত্রীকে হত্যার পর অসুস্থ হয়ে মারা গেছে বলে প্রচার চালায়। এ নিয়ে দীর্ঘ সময় দফা-রফার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়। অবশেষে থানায় সংবাদ দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশ উদ্ধার করে এবং ঘাতক স্বামী নাসির উদ্দিনকে গ্রেফতার করে। বুধবার তাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্র জানায়, কৃষ্ণপুর গ্রামের আঃ মান্নানের ছেলে নাসির উদ্দীন (৩৮) প্রায় ১৪ বছর আগে মহাদেবপুর উপজেলার খোর্দ্দনারায়নপুর (কুমির পুকুর) গ্রামের আকবর আলী খোকার মেয়ে পারুল আখতারকে বিয়ে করে। তাদের সংসারে নুসরাত জাহান নদী (১২) নামের এক কন্যা রয়েছে। এর মাঝে নাসির উদ্দীন একই গ্রামের ময়নুল হকের যুবতী কন্যা শারমিন আক্তার শিলার (১৮) সঙ্গে গোপনে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলার এক পর্যায়ে ৬ মাস আগে পরকীয়া প্রেমিকা শারমিন আক্তার শিলাকে বিয়ে করে। স্বামীর পরকীয়া ও দ্বিতীয় বিয়ের পর থেকেই পারুল আখতার ও নাসির উদ্দীনের মাঝে প্রায় কলহ লেগেই ছিল।

(বিএম/এসপি/ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৮)