ঢাকা, বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯, ৫ আষাঢ় ১৪২৬

প্রচ্ছদ » পাশে দাঁড়াই » বিস্তারিত

জান্নাত বিরল রোগে আক্রান্ত

২০১৮ আগস্ট ১১ ১৯:১৫:৪৭
জান্নাত বিরল রোগে আক্রান্ত

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : জান্নাত। তার মাত্র পাঁচ বছর বয়স। জান্নাতের পিতার নাম রোকনউজ্জামান। সে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার পান্টি গ্রামের বাসিন্দা। দিনমজুর রোকনউজ্জামানের সংসার বেশ ভালোই চলছিলো। বছর পাঁচেক আগে ঘর আলো করে কণ্যাসন্তান জন্মগ্রহণ করে। তার নাম রাখেন জান্নাত।

জান্নাতের বয়স যখন ২ বছর তখন তার চোখের উপরে একটি ছোট গুটি দেখা যায়। আস্তে আস্তে গুটিগুলো তা মুখ মন্ডলের সব জায়গায় ছড়িয়ে পড়ে। মুখ বিকৃত হওয়ায় খেতে পারেন না স্বাভাবিক ভাবে। কোনরকমে তরল খাবার খেয়েই জীবন বাঁচিয়ে রেখেছেন। এ কারণে এখন ঠিকমত চোখেও দেখতে পারেন না। চলাচল করতে অনেক কষ্ট। সে সময়ই স্থানীয় চিকিৎসককে দেখালে ক্ষত হয়েছে বলে এ্যান্টিবায়োটিকসহ নানান ধরনের ঔষুধপথ্য দিয়ে চিকিৎসা প্রদান করেিেছলেন। বিভিন্ন সময় চিকিৎসা করালেও তিনি সুস্থ হননি। বছর খানেক আগে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করলেও বিরল রোগের কোন চিকিৎসা নেই বলে সাফ জানিয়ে দেন। বাধ্য হয়ে আবার ফিরে আসে গ্রামে।

মেয়ের এমন অবস্থায় নিজের সম্বলটুকু (কিছু জমি) বিক্রি করে চিকিৎসা করাতে গিয়ে বর্তমানে খুব কষ্টে দিন চলে তার। রোগটি থেকে তার মেয়ের মুক্তি পেতে চান দিনমজুর রোকনুজ্জামান।

রোকনুজ্জামানের স্ত্রী বলেন, আমার মেয়ের মাথা ও মুখমন্ডল থেকে শুরু হওয়া এ রোগের বিস্তার দিন দিন ভয়ংকর হওয়ার পর্যায়গুলো আমি দেখেছি। কিন্তু অর্থের অভাবে তাঁর চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে ব্যর্থ
হয়েছি। আমাদের করুণ অবস্থা দেখে গ্রামবাসী সাহায্য সহযোগিতাও করেন।

তিনি বলেন, আমার মেয়ের মুখমন্ডলে চুলকানির সঙ্গে অনেক ভোগান্তি তো রয়েছেই, এর ওপর শরীরটা ভারী ভারী লাগে। যে কেউ আমার মেয়েকে দেখে দূরে সরতে চেষ্টা করে। তাকে নিয়ে রাস্তায় হাঁটতে পারি না। আমার মেয়ের কাছেও কেউ আসেনা, বাচ্চারা যখন আমার মেয়েকে দেখে, তারা শুধু ভূত বা দৈত্য বলে দৌড়ে পালায়।’

তার চিকিৎসার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন তার পরিবারে সদস্যসহ এলাকাবাসী। সহযোগিতা বা চিকিৎসার হাত বাড়িয়ে দিতে যোগাযোগ করুন: এস এম জামাল, মোবা-০১৭১৯-
৬৩৪৫৮৫ নওয়াজ শরীফ ০১৭২৩-৯৫৪১৩৩।

(কেকে/এসপি/আগস্ট ১১, ২০১৮)