ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

প্রচ্ছদ » সম্পাদকীয় » বিস্তারিত

ফরিদপুরের প্রফেসর তপন দেবনাথ, তার স্ত্রী ও অটিস্টিক পুত্রের অপরাধ কী?

২০১৯ মে ২৬ ২২:১৬:৪৫
ফরিদপুরের প্রফেসর তপন দেবনাথ, তার স্ত্রী ও অটিস্টিক পুত্রের অপরাধ কী?

প্রবীর সিকদার


মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী,
আপনি কি জানেন, ফরিদপুরের সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের শিক্ষক প্রফেসর তপন দেবনাথকে তার স্ত্রী ও অটিস্টিক পুত্রসহ জোরপূর্বক বের করে বাসায় তালা তালা লাগিয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা? প্রায় দুই সপ্তাহ হতে চলল, তারা ফরিদপুরের বাইরে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন! স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশ নির্বিকার! আপনি শুনে বিস্মিত হবেন, উপর্যুপরি হুমকির মুখে ফরিদপুরের সংবাদকর্মীরা অধ্যাপক পরিবারকে উচ্ছেদ করে ফরিদপুর ত্যাগে বাধ্য করার এমন নির্মম ঘটনা নিয়ে কোনও মিডিয়ায় সংবাদ পরিবেশন করতেও পারেননি!

গত ১৫মে ফরিদপুর শহরের রামকৃষ্ণ মিশন রোডে সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের পদার্থ বিজ্ঞানের অধ্যাপক, বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের তপন দেবনাথের বাসায় হানা দেয় একদল যুবক। অধ্যাপক তপন দেবনাথ তখন কলেজে ছিলেন। ওই যুবকেরা তার স্ত্রী দীপ্তি সিকদার ও তার অটিস্টিক সন্তান দীপ্ত দেবনাথ মনময়কে জোর করে বের করে দিয়ে বাসায় তালা লাগিয়ে চলে যায়! সন্ত্রাস আতংকের মুখে হটাত গৃহহারা দীপ্তি ও তার অটিস্টিক সন্তান আশ্রয় নেন সরকারি রাজেন্দ্র কলেজে। সেখানেও তাদের আশ্রয় হয়নি! কলেজের অধ্যক্ষ দায়িত্ব এড়াতে তাদেরকে ফরিদপুর শহর ছাড়ার পরামর্শ দেন। অধ্যাপক তপন দেবনাথ ও তার স্ত্রী-পুত্র শহর থেকে দূরে কানাইপুরে আত্মীয় সুবীর সিকদারের বাড়িতে আশ্রয় নেন। পড়ন্ত বিকেলে সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের অধ্যক্ষ তাদেরকে দ্রুততার সাথে ফরিদপুর ত্যাগের পরামর্শ দেন! তারা বাধ্য হন ফরিদপুর থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিতে। এখনো তারা ঢাকাতেই রয়েছেন। অটিস্টিক সন্তান নিয়ে তারা ঢাকায় মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন! প্রফেসর তপন দেবনাথের পরিবারটি কতো দিনে ফরিদপুরে ফিরতে পারবেন, তার কোনও ঠিক-ঠিকানা নেই! আশ্চর্যের বিষয়, এমন বর্বর ঘটনা জানার পরও ফরিদপুরের প্রশাসন কিংবা পুলিশ ওই অসহায় অধ্যাপক পরিবারের পাশে দাড়ায়নি! কলেজ অধ্যক্ষও ওই অধ্যাপক পরিবারটিকে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ না নিয়ে দুর্বৃত্ত চক্রের ইচ্ছার বাস্তবায়ন করে চলেছেন!

মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী, আপনার প্রতি আমার গভীর আস্থা রয়েছে। আপনি নিশ্চয়ই কার্যকর নির্দেশ দিয়ে ওই অসহায় অধ্যাপক পরিবারটিকে দ্রুততার সাথে ফরিদপুরের বাসায় ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থা করবেন।
আপনি সফল হন, এই দোয়া রইলো আপনার প্রতি।

লেখক : সংবাদকর্মী।