ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৭ আশ্বিন ১৪২৬

প্রচ্ছদ » মিডিয়া » বিস্তারিত

প্রেসক্লাব নিয়ে বহিরাগতদের গভীর ষড়যন্ত্র

সাতক্ষীরার সাংবাদিকদের জানমালের নিরাপত্তা হুমকির মুখে

২০১৯ মে ২৭ ১৪:১১:২৯
সাতক্ষীরার সাংবাদিকদের জানমালের নিরাপত্তা হুমকির মুখে

রঘুনাথ খাঁ, সাতক্ষীরা : গত রবিবার সাতক্ষীরা থেকে প্রকাশিত দৈনিক সুপ্রভাত সাতক্ষীরার প্রথম পৃষ্ঠায় ‘‘ সংবাদ সম্মেলনে ইউনাইটেড ক্লাবের দাবী দীঘীর পাড়ের তৎকালীন পাবলিক লাইব্রেরীর ছাদ তাদের ৯৯ বছরের লীজ নেওয়া’’ শীর্ষক প্রকাশিত খবর সহ আরো ২/১টি পত্রিকায় প্রকাশিত বিভ্রন্তিকর তথ্য সম্বলিত খবরের প্রতি সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের দৃৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। উক্ত খবরে নিজেকে সাতক্ষীরা ইউনাইটেড ক্লাবের সভাপতি দাবী করে সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রদলের সাবেক সহ-সভাপতি একেএম আনিসুর রহমান যে তথ্য উপস্থাপন করেছেন তার অধিকাংশই মিথ্য ভিক্তিহীন উদ্দেশ্য প্রনোদিত ও বিভ্রান্তিকর। ২৩ মে থানায় বসার কথা ছিল সম্পূর্ন মিথ্যা। এধরণের কোন পত্র থানা থেকে প্রেসক্লাবে পৌছাইনি।

প্রকৃতপক্ষে ১৯৬৯ সালে সাতক্ষীরা শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্কস্থ দিঘীর পাড়ে সাতক্ষীরা কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরী প্রতিষ্ঠিত হয়। একই বছর তৎকারীন এসডিও শফিউর রহমান উক্ত লাইব্রেরীর মধ্যই সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব উদ্ভোধন করেন। এসময় থেকে দুটি প্রতিষ্ঠান ঐ ভবনে তাদের কার্যক্রম চালায়। পরবর্তিতে ১৯৮১ সালে সাতক্ষীরা কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরী নবনির্মিত নিজস্ব ভবন পৌর সভার অডিটরিয়ামের নিজতলায় বলে যায়।

সে সময় থেকে পৌরসভার উক্ত ভবনটি এককভাবে প্রেসক্লাব ব্যবহার করা শুরু করে। পরবর্তিতে সাতক্ষীরা পৌরসভার মাননীয় মেয়র শেখ আশরাফুল হক খতিয়ান নং ২/২, জে.এল. নং-৯৪, ১২২৮২, ১২২৮৩ নং দানপত্র দলিল মূলে উক্ত ভবনসহ মোট ১০ শতক জমি সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের অনুকূলে হস্থান্তর করেন। সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের অনুকূলে উক্ত জমির মিউটেশন সম্পন্নের পর বর্তমান ১৪২৬ সন পর্যন্ত খাজনাও পরিশোধ করা হয়েছে।

প্রকাশিত খবরে একেএম আনিসুর রহমান সাতক্ষীরা প্রেসকাবের পুরাতন ভবনের দোতলায় অবস্থিত পরিত্যাক্ত ঘরটি তাদের ৯৯ বছর লীজ নেওয়া বলে দাবী করলেও লীজ সংক্রান্ত কোন কাগজপত্র প্রদর্শন করতে পারেননি। একজন পৌর চেয়ারম্যানের দেয়া প্রত্যায়নপত্রকে তিনি মালিকানার দলিল হিসাবে উপস্থাপন করে জনমনের বিভ্রান্তির সৃষ্টি করছেন।
বর্তমানে প্রেসক্লাবের পুরাতন ভবনটি বেশ ঝুকিপূর্ন। এমতবস্থায় উক্ত ভবনের উপরে যে কোন নির্মান/সংস্কার কাজ যেটি ঝুকিতে আরো পরিস্কার হয়েছে।

তাছাড়া একেএম আনিছুর রহমান বেশ কিছুদিন যাবৎ সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের বিরুদ্ধে নানা ধরণে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছেন বলে আমরা জানতে পেরেছি। ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে তিনি এসব কথিত সভাপতি সেজে প্রেক্লাবের নিজস্ব জমিতে অনধিকার প্রবেশ করার চেষ্টা করছেন। সাংবাদিকদের জানমালের নিরাপত্তা যে কোন মুহুর্তে ব্যহত হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।

সাংবাদিকদের নিরাপত্তাকে আরও ঝুকিপূর্ণ করার চেষ্টা করছেন। আমরা প্রকাশিত খবরের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এবং প্রেসক্লাবের সম্পদ রক্ষায় ও সাংবাদিকদের জান মালের নিরাপত্তার বিষয়ে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনসহ সরকারের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর দৃষ্টি আকর্ষন করে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রেসবিজ্ঞপ্তি পাঠিয়েছেন সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মমতাজ আহম্মেদ বাপ্পি।

(আরকে/এসপি/মে ২৭, ২০১৯)