ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ২ শ্রাবণ ১৪২৬

প্রচ্ছদ » মুক্তিযুদ্ধ » বিস্তারিত

৩০ জুন, ১৯৭১

বাংলাদেশের জনগণ ইয়াহিয়ার ভাষণকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে

২০১৯ জুন ৩০ ০০:০৫:০২
বাংলাদেশের জনগণ ইয়াহিয়ার ভাষণকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে

উত্তরাধিকার ৭১ নিউজ ডেস্ক :বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে প্রদত্ত বিবৃতিতে বলেন, আমাদের মুক্তিযুদ্ধ চলছে এবং প্রিয় মাতৃভ’মি থেকে দখলদার বাহিনীর শেষ সৈনিকটিকে বিতাড়িত না করা পর্যন্ত তা চলবে। তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধ এখন মাঝপথে রয়েছে। মুক্তিফৌজের বীরযোদ্ধারা রণাঙ্গনেই প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়ার ঔদ্ধত্যপূর্ণ বেতার ভাষণের জবাব দেবে। বাংলাদেশের জনগণ ইয়াহিয়ার ভাষণকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে। ইয়াহিয়ার শাসনতান্ত্রিক পরিকল্পনা সাড়ে সাত কোটি বাঙালির সাথে একটি নিষ্ঠুর রসিকতা ছাড়া কিছু নয়।

হাবিলদার মতিনের নেতৃত্বে এক প্লাটুন মুক্তিযোদ্ধা লক্ষ্মীপুর থেকে কালির বাজার গামী পাকবাহিনীর একটি দলকে আক্রমণ করে। এতে কয়েকজন পাকসেনা আহত হয়। পরে পাকসেনারা কালির বাজারে আগুন লাগিয়ে পালিয়ে যায়।

ওয়াশিংটনে জনৈক সরকারি মুখপাত্র বলেন, ২৫ মার্চের পর মার্কিন সরকার পাকিস্তানকে সামরিক অস্ত্রের জন্য কোনো নতুন লাইসেন্স দেয়নি কিংবা মেয়াদ উত্তীর্ণ কোনো লাইসেন্স নবায়নও করেনি। তবে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক অস্ত্র বিক্রি নিষিদ্ধ করার আগে পাকিস্তানকে যে লাইসেন্স দেয়া হয়েছিল তার একটি চালান নিয়ে আগামী এক বা দু’মাসের মধ্যে অস্ত্র ও গোলাবারুদ বোঝাই পাঁচটি জাহাজ পাকিস্তানের পথে রওনা দেবে।

জাতিসংঘের উদ্বাস্তু দফতরের হাইকমিশনার প্রিন্স সদরুদ্দিন লন্ডনে এক সাংবাদিক সম্মেলনে ভারতের উদ্বাস্তু সমস্যা সমাধানে বিশ্বের বিভিন্ন সরকার ও জাতিসংঘের সংস্থাগুলোকে ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে আসার আবেদন জানান। তিনি বলেন, পাকিস্তান পূর্বাংশে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনার জন্য বিশ্বাস ও সমঝোতার পরিবেশ সৃষ্টির উদ্দেশ্যে রাজনৈতিক সমাধানের প্রয়োজন রয়েছে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর বিশেষ দূত ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী সরদার শরণ সিং বেলগ্রেডে প্রেসিডেন্ট টিটোর সাথে বাংলাদেশ পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন।

যুগোশ্লাভ প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশের শরণার্থীদের দূরবস্থায় তাঁর সমবেদনা প্রকাশ করেন এবং সহযোগিতা ও সমর্থন দানের জন্য নিশ্চয়তা দেন।

প্রাক্তন প্রাদেশিক মন্ত্রী হাশিমউদ্দিন আহমদ ময়মনসিংহে এক জনসভায় বলেন, সীমান্তবর্তী শহরগুলোতে ভারতীয় অনুপ্রবেশকারীরা (মুক্তিযোদ্ধা) অশুভ কর্মতৎপরতা চালাচ্ছে। তাদের এই তৎপরতা গভীর উৎকন্ঠার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তথ্যসূত্র: মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর।

(ওএস/এএস/জুন ৩০, ২০১৯)