ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ৬ কার্তিক ১৪২৬

প্রচ্ছদ » প্রবাসের চিঠি » বিস্তারিত

আচমকা দেশে ফিরছে না প্রিয়া সাহা

২০১৯ জুলাই ২৬ ১৬:০২:৫৪
আচমকা দেশে ফিরছে না প্রিয়া সাহা

প্রবাস ডেস্ক : বাংলাদেশ সম্পর্কে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে নালিশের পর দেশ-বিদেশে আলোচনার ঝড় ওঠানো প্রিয়া সাহা সহসাই দেশে ফিরছে না। নিজের নিরাপত্তার কথা ভেবে এক্ষুণি দেশে না ফেরার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানা গেছে। বাংলা প্রেস।

নিউ ইয়র্কে তার এক ঘনিষ্ঠ সূত্র জানিয়েছে ঢাকায় ফিরলে তাকে গ্রেফতার বা হয়রানির বদলে সরকার নিরাপত্তা দেবে বলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে এ মোমেন যে ঘোষণা দিয়েছেন তা বিশ্বাসযোগ্য হয়নি। ফলে আপাতত যুক্তরাষ্ট্র ধর্মীয় আশ্রয়প্রার্থীর জন্য আবেদন করবেন। তাকে আশ্বস্ত করেছেন, প্রিয়া সাহা ঢাকায় ফিরলে তাকে গ্রেফতার বা নির্যাতনের কোনো পদক্ষেপ সরকার নিচ্ছে না।

নিউ ইয়র্কে ঘনিষ্ঠ এক আত্মীয়ের বাসায় বাস করছেন প্রিয়া সাহা। আপাতত গণমাধ্যমকর্মি কিংবা অপরিচিত কারো সাথেই দেখা করছেন না। এমনকি ফোনে কথা বলতেও নারাজ। জাতিসংঘের একাধিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে প্রিয়া সাহা তার বিষয় নিয়ে যোগাযোগ করেছেন বলে জানা গেছে।

হোয়াইট হাউজে ১৭ই জুলাই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সাথে এক সাক্ষাতের সময় বাংলাদেশে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের পরিস্থিতি নিয়ে তার এক বক্তব্য নিয়ে বাংলাদেশ সরকারসহ দেশ-বিদেশে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে প্রিয়া সাহার অভিযোগটি ছিল এ রকম:

মিস সাহা : স্যার, ধন্যবাদ। স্যার, আমি এসেছি বাংলাদেশ থেকে। আর এখানে ৩৭ মিলিয়ন (তিন কোটি ৭০ লাখ) লোক; হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান (অস্পষ্ট)। দয়া করে আমাদের বাংলাদেশের জনগণকে সাহায্য করুন। আমরা আমাদের দেশে থাকতে চাই।

প্রেসিডেন্ট : বাংলাদেশ?

মিস সাহা : জি। এখনো সেখানে ১৮ মিলিয়ন (এক কোটি ৮০ লাখ) সংখ্যালঘু লোক আছে। আমার অনুরোধ হলো, দয়া করে আমাদের সাহায্য করুন। আমরা আমাদের দেশ ছাড়তে চাই না। শুধু সাহায্য, মিস্টার প্রেসিডেন্ট।

আমি আমার বাড়ি হারিয়েছি। তারা আমাদের বাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে। তারা আমাদের জমি নিয়ে নিয়েছে। কিন্তু কোনো বিচার হয়নি।

প্রেসিডেন্ট : জমি কে নিয়েছে? বাড়ি ও জমি কে নিয়েছে?

মিস সাহা : মুসলমান মৌলবাদী গোষ্ঠী। আর তারা সব সময় রাজনৈতিক আশ্রয় পাচ্ছে।
ট্রাম্পের সঙ্গে সেদিন প্রিয়া সাহার কথোপকথনের যে ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে তাতে অবশ্য প্রিয়া সাহাকে ৩৭ মিলিয়ন লোক; হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান ‘ডিসঅ্যাপিয়ার্ড’ হওয়ার কথা বলতে দেখা গেছে।

(ওএস/এসপি/জুলাই ২৬, ২০১৯)