ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ৬ কার্তিক ১৪২৬

প্রচ্ছদ » রাজনীতি » বিস্তারিত

‘আর মানববন্ধন নয়, রাস্তায় নেমে পড়ুন’

২০১৯ সেপ্টেম্বর ২৯ ১৪:০৪:০১
‘আর মানববন্ধন নয়, রাস্তায় নেমে পড়ুন’

স্টাফ রিপোর্টার : মানববন্ধনের প্রতি অনীহা প্রকাশ করে দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক বলেছেন, আর মানববন্ধন নয়, রাস্তায় নেমে পড়ুন। কঠোর আন্দোলন করুন, বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করি। জনগণ আপনাদের দিকে তাকিয়ে আছে।

আজ (রবিবার) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপি চেয়ারপারসনের নিঃশর্ত মুক্তি এবং তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন। নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরাম এ মানববন্ধনের আয়োজন করে।

ফারুক বলেন, আমি মনে করি বেগম খালেদা জিয়া ৫ বারের প্রধানমন্ত্রী হতেন যদি ২০১৪ ও ১৯ সালের নির্বাচন হতো। সেই নেত্রীকে তারা কারাগারে আটক করে রেখেছে। তাদের চাওয়া এক কোটি-দুই কোটি টাকা... যে মামলা জামিনযোগ্য.. কিন্তু তারা জামিন দিচ্ছে না। এই মুহূর্তে যদি বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি পান, তাহলে বাংলাদেশের এমন কোনো শক্তি নেই যে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় তাকে রুখতে পারে।

তিনি বলেন, যে দেশের অর্থমন্ত্রী স্বীকার করেন ১১ হাজার ১০০ কোটি টাকা ঋণ নিয়ে ব্যাংক খালি করে দিয়েছে। আর যারা ক্যাসিনোর টাকা নিয়েছে আপনাদের ভাষায়, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ভাষায় সেই টাকা অবৈধ হিসেবে যদি তাদের গ্রেফতার করা হয়, তাহলে যারা বৈধ টাকা, আমার ব্যাংকের টাকা লুট করে নিয়েছে তাদের কেন গ্রেফতার করা হয় না? তাদের গ্রেফতার করবেন না... কারণ আপনারা তো আমার জনগণের ভোটে নির্বাচিত সরকার নয়।

তিনি আরও বলেন, যদি শক্তিশালী দলগুলো দুর্বল হয়ে পড়ে তাহলে স্বৈরাশাসক আরও কঠিনভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়। তাই বলি আর মানববন্ধন নয় নেমে পড়ুন, জনগণ আপনাদের দিকে তাকিয়ে আছে।

সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনার ভেবেছেন বেগম খালেদা জিয়াকে আটক রেখে আন্দোলন হবে না, আন্দোলন হবে সে আন্দোলনের মাধ্যমে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি হবে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হবে।

আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি আরো বলেন, আপনাদের ভাষায় গত ১০ বছর ধরে তারেক রহমান ক্যাসিনোর টাকা নেন, তাহলে তো তিনি বড় নেতা। আপনারা তার দলে যোগ দেন না কেন? এসব ভুয়া কথা বলে মানুষের মুখ অন্যদিকে নেওয়া, মানুষের মন অন্যদিকে নেওয়া ,আন্দোলন প্রতিহত করার চেষ্টা তা ঠিক হবে না। আন্দোলন হবেই।

তিনি বলেন, রাষ্ট্রের সকল প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করেছেন, মানুষের ভোটের অধিকার হরণ করেছেন ,শেয়ার বাজার লুট করেছেন, শেয়ারবাজার লুটকারীদের লিস্ট তৈরি করতে পারেননি, ব্যাংক লুট করেছেন, সাগর-রুনি হত্যা মামলার বিচার করতে পারেননি। দেশের মানুষকে বোকা মনে করবেন না। দেশের মানুষ বোঝে। আমরা সংসদে নাই। সংসদে থাকলে তেলের দাম গ্যাসের দাম আর এসব প্রতিষ্ঠান ধ্বংস হতো না। যদি সুষ্ঠু নির্বাচন হতো তাহলে আমরা সংসদে ঠিকই যেতাম ক্ষমতায় ঠিকই যেতাম।

নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরামের উপদেষ্টা নাসির উদ্দিন হাজারীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এম জাহাঙ্গীর আলমের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমী, কৃষক দল কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আলহাজ্ব মো. মাইনুল ইসলাম, জাতীয়তাবাদী ওলামা দলের আহ্বায়ক প্রিন্সিপাল শাহ মোহাম্মদ নেসারুল হক, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ফরিদ উদ্দিন, জাতীয়তাবাদী তাঁতী দলের যুগ্ম-আহবায়ক ড. কাজী মনিরুজ্জামান মনির, হাজী মোজাম্মেল হক মিন্টু সদাগর, মির মমিনুল ইসলাম সুজন, জাতীয় গণতান্ত্রিক মঞ্চের সভাপতি ইসমাইল তালুকদার খোকন প্রমুখ।

(ওএস/এসপি/সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৯)