ঢাকা, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬

প্রচ্ছদ » লাইফস্টাইল » বিস্তারিত

জেনে নিন আনুষ্কা শর্মার রূপের রহস্য

২০১৯ সেপ্টেম্বর ২৯ ১৬:০৩:১৬
জেনে নিন আনুষ্কা শর্মার রূপের রহস্য

লাইফস্টাইল ডেস্ক : জীবনটা সিনেমার মতো নয়, বাস্তবের মেয়েরাও রূপালী পর্দার নায়িকাদের মতো ঝলমলে নয়। আসলে সিনেমার পর্দায় তাদের উপস্থাপনই করা হয় আকর্ষণীয়ভাবে। তবে পর্দার বাইরে বাস্তব জীবনেও তারা নিজের ত্বক, চুল, ফিটনেস ইত্যাদি নিয়ে সতর্ক থাকেন।

বর্তমান সময়ে বলিউডের যে কজন নায়িকার রূপ সবাইকে মুগ্ধ করে রাখে তাদের মধ্যে অন্যতম আনুষ্কা শর্মা। আনুষ্কা সামান্য মেকআপ করলেই ঝলমলিয়ে ওঠে তার মাখনমসৃণ ত্বক, চুলের স্বাস্থ্যকর উজ্জ্বলতা নজর কেড়ে নেয়। আর এ সবের পিছনে আছে তার দীর্ঘদিনের নিয়ন্ত্রিত জীবনযাত্রা।

আপনি কী খাচ্ছেন, কখন খাচ্ছেন এবং কতটা পরিশ্রম করে শরীররে সচল রাখছেন, তার উপরেই নির্ভর করবে আপনার সৌন্দর্য। তাই দামী ক্রিম বা শ্যাম্পুর পিছনে না ছুটে জোর দিন নিয়মিত শরীরচর্চা আর নিয়ন্ত্রিত খাওয়াদাওয়ার উপর।

আনুষ্কা ও বিরাটের খাওয়াদাওয়া খুব নিয়ন্ত্রিত। এমনিতে তারা খুব কঠিন ডায়েট অনুসরণ করেন না, তবে নিয়মের বাইরেও যান না তেমন। বিরাট বহুদিন আগেই নিজের প্রিয় পরোটা, হালুয়া, বাটার চিকেনকে বিদায় জানিয়েছেন, আনুষ্কার রুটিনও মোটামুটি তাই।

আনুষ্কা নিরামিষ আহার করেন, তাতে ভালো থাকে তার ত্বক আর চুল, বাড়তে পারে না শরীরের তাপমাত্রাও। শরীরের তাপ ও ইনফ্লামেশন বা প্রদাহ নিয়ন্ত্রণ করা গেলে ত্বকে অ্যালার্জি বা র্যাশও হয় না। বেশি করে অরগ্যানিক শাকসবজি ও ফলমূল খাওয়াটাই তাদের অভ্যাস। সেইসঙ্গে রাতের খাবারও খুব তাড়াতাড়ি সেরে ফেলেন।

নিজের ফিটনেস রুটিন নিয়ে কখনোই কোনো সমঝোতা করেন না আনুষ্কা। বিরাট নিজেও অনেকবার স্বীকার করেছেন যে আনুষ্কা তার চেয়েও বেশিক্ষণ ধরে কার্ডিও ওয়ার্কআউট করতে পারেন। কখনো কোনো শুটিংয়ে বাইরে কোথাও গেলেও নিজের মেক শিফট জিম ক্যারি করেন এই বলিউড তারকা, নিয়ে যান পারসোনাল ট্রেনারকেও।

ইচ্ছে করলে আপনিও রোজের রুটিনে কোনো না কোনো ব্যায়াম যোগ করতে পারেন। হাঁটা বা যোগাভ্যাসের ক্ষেত্রে অন্য কারও উপর নির্ভর করার ব্যাপারও নেই, নিজের সুবিধামতো তা করাই যায়। মনে রাখবেন, যেকোনো ডায়েট বা ব্যায়ামের ক্ষেত্রেই নিয়ম মেনে চলাটা বেশি জরুরি। হঠাৎ করে তিন-চার দিন বাদ দিয়ে দিলে বা প্রায়ই প্রয়োজনের চেয়ে বেশি খেয়ে ফেললে কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হবে না।

যারা দীর্ঘদিন ধরে কোনো না কোনো ব্যায়াম করেন, তারা ব্যায়ামের রুটিন ইন্টারেস্টিং করে তোলার চেষ্টা করুন। হাড়ের স্বাস্থ্য ভালো রাখার জন্য ওয়েট ট্রেনিং প্রয়োজনীয়, যোগব্যায়াম আপনার শরীর টানটান ও ফ্লেক্সিবল রাখে- সেই সঙ্গে শান্ত রাখে মনও। হাঁটা বা জগিং আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে দারুণ কার্যকর। নাচ বা মার্শাল আর্টেরও সাহায্য নিতে পারেন।

আনুষ্কার মতো এসবকিছু করতে পারলে সবচেয়ে ভালো ফল মিলবে। আসল কথা হলো, অ্যাকটিভ থাকার চেষ্টা করতে হবে। দীর্ঘক্ষণ এক জায়গায় বসে থাকা আর জাঙ্ক ফুড খাওয়ার যে অভ্যাসটা আমরা তৈরি করেছি, আসলে সেটাই ত্বক আর চুলের স্বাস্থ্যহানির সবচেয়ে বড় কারণ।

(ওএস/এসপি/সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৯)