ঢাকা, শনিবার, ৩০ মে ২০২০, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

প্রচ্ছদ » দেশের বাইরে » বিস্তারিত

আম্ফানের নজিরবিহীন তাণ্ডবের শঙ্কা

২০২০ মে ১৯ ১৫:৫১:১০
আম্ফানের নজিরবিহীন তাণ্ডবের শঙ্কা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট শতাব্দির প্রথম প্রলয়ঙ্করী সুপার সাইক্লোন আম্ফান ভারতের পশ্চিমবঙ্গ এবং ওডিশ্যা প্রদেশের দিকে আরও অগ্রসর হওয়ায় দেশটির আবহাওয়া দফতর বিশেষ সতর্কতা জারি করেছে। এ দুই রাজ্যে আম্ফানের নারকীয় তাণ্ডবে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা জানিয়ে সতর্কতা অবলম্বনের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

ভারতীয় আবহাওয়া দফতর বলছে, আম্ফান মঙ্গলবার সকাল ৯টা পর্যন্ত পারাদ্বীপের ওডিশা উপকূল থেকে প্রায় ৪৮০ কিলোমিটার এবং পশ্চিমবঙ্গের দীঘা থেকে ৬৩০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে। পশ্চিমবঙ্গ এবং ওডিশ্যার দিকে সুপার সাইক্লোনটি দ্রুতগতিতে এগিয়ে আসায় বুধবার বিকেলের দিকে এ দুই প্রদেশে আছড়ে পড়তে পারে।

সাইক্লোন আম্ফান বুধবার বিকেলের দিকে পশ্চিমবঙ্গ উপকূলে ঘণ্টায় ১৯৫ কিলোমিটার বাতাসের গতিবেগ নিয়ে আঘাত হানতে পারে বলে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে জানিয়েছে ভারতের আবহাওয়া দফতর।

তবে এই গতিবেগ ঘণ্টায় ২২০ থেকে ২৩০ কিলোমিটারও হতে পারে। বঙ্গোপসাগরে চলতি শতাব্দির সবচেয়ে ভয়ঙ্কর সুপার সাইক্লোনে রূপ নিয়ে অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় আম্ফান। ১৯৯৯ সালের পর এতো বড়মাত্রার ঝড় বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হয়নি। ১৯৯৯ সালে বঙ্গোপসাগরে একটি সুপার সাইক্লোন তৈরি হয়েছিল; যার আঘাতে ভারতের ওডিশ্যা প্রদেশে প্রায় ১০ হাজার মানুষের প্রাণহানি ঘটে।

আঘাত হানার সময় দুর্বল হয়ে না পড়লে আম্ফানের তাণ্ডব সেই ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে ভারতের আবহাওয়াবিদরা শঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতির একটি তালিকা প্রকাশ করেছে ভারতীয় আবহাওয়া দফতর।

:: কাঁচা ঘরবাড়ির দুমড়ে-মুচড়ে ফেলার সম্ভাবনা রয়েছে আম্ফানের
:: ঝড়ে যেকোনও উড়ন্ত বস্তুর মাধ্যমে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি শঙ্কা
:: উপড়ে পড়তে পারে বিদ্যুৎ ও টেলিফোনের খুঁটি
:: বিভিন্ন এলাকার রেল ও সড়কপথ ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে
:: আবাদি জমির ফসল, গাছপালা এবং বাগানের প্রচুর ক্ষতি হতে পারে
:: বড় বড় গাছ যেমন খেজুর এবং নারিকেল গাছ উপড়ে পড়তে পারে
:: সমুদ্রে ভাসমান ছোট নৌকা এবং জাহাজ উল্টে যেতে পারে
:: রেল এবং বিদ্যুতের লাইন তছনছ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে

এনডিটিভি বলছে, বঙ্গোপসাগরের সৃষ্ট এই ঘূর্ণিঝড় ইতোমধ্যে পাঁচ ক্যাটেগরির হ্যারিকেনের শক্তি সঞ্চয় করে অগ্রসর হচ্ছে। এদিকে, আম্ফানের সম্ভাব্য তাণ্ডব মোকাবিলায় সহায়তা করতে ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ মঙ্গলবার পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন।

আম্ফানের গতিমুখের সামনে থাকা পশ্চিমবঙ্গের উপকূলীয় এলাকা থেকে মঙ্গলবার ৫০ লাখের বেশি মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কমিয়ে আনা এবং আম্ফানের আঘাত সামলানোর প্রস্তুতি পর্যালোচনা করতে সোমবার দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মন্ত্রিসভার সদস্যদের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করেন।

(ওএস/এসপি/মে ১৯, ২০২০)