ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ৭ কার্তিক ১৪২৭

প্রচ্ছদ » প্রবাসের চিঠি » বিস্তারিত

গর্ভের সন্তান চুরি করতে মাকে হত্যা  

যুক্তরাষ্ট্রে ৬৭ বছর পর কার্যকর হচ্ছে নারী আসামির মৃত্যুদণ্ড 

২০২০ অক্টোবর ১৮ ০০:৪৯:১০
যুক্তরাষ্ট্রে ৬৭ বছর পর কার্যকর হচ্ছে নারী আসামির মৃত্যুদণ্ড 

প্রবাস ডেস্ক : দীর্ঘ ৬৭ বছর পর আবারও এক নারীর আসামির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। লিসা মন্টগোমারি নামে ওই আসামিকে আগামী ৮ ডিসেম্বর লেথাল ইনজেকশন প্রয়োগের মাধ্যমে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হবে বলে শুক্রবার এক বিবৃতিতে মার্কিন বিচার বিভাগ এ তথ্য জানিয়েছে। ২০০৪ সালে মিসৌরিতে এক অন্তঃসত্ত্বা নারীকে শ্বাসরোধে হত্যার পর তার গর্ভের সন্তানকে চুরি করার চেষ্টা করেছিলেন লিসা। ইন্ডিয়ানার টেরে হাউতে কারাগারে বিষাক্ত ইনজেকশন পুশ করে তার মৃত্যু নিশ্চিত করা হবে। খবর বাংলা প্রেস ।

২০০৪ সালে লিসা মন্টগোমেরি তার স্বামী এবং বন্ধুদের জানিয়েছিলেন যে তিনি গর্ভবতী। তবে এটি ছিল তার একটি মিথ্যা প্রচার, যা তিনি সারাজীবন করে আসছিলেন। তার এ ধ্রুব মিথ্যা গর্ভপাতের সাথে মিথ্যা আবরণ বা ব্যাগি পোশাক পরতেন এবং নকল ডাক্তার নিয়োগ করতেন। তিনি দাবি করেছিলেন যে তার অ্যালকোহলযুক্ত সৎপিতা তাকে যৌন নির্যাতন করেছিলেন।

যদিও তার প্রথম বিয়েতে তার চারটি সন্তান ছিল, তবে তার আর কোন সন্তান হবে না, কারণ তার প্রজনন ব্যবস্থা নিরাময়ের বাইরেও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল। কেন তার স্বামী লিসার এই মিথ্যাটি সনাক্ত করতে পারেনি তা অজানা। তিনি একটি শিশু চুরি করে নিজের মত করে তা ছড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন। তিনি গর্ভবতী বনি জো স্টিনিটের সাথে অনলাইনে সাক্ষাত করেন। লিসা স্টিনিটের মতো কুকুর প্রেমি। লিসা এ সময় ডার্লিন ফিশার নামে তার সাথে যোগাযোগ করেন। কুকুরছানা দেখার জন্য তারা একটি তারিখও ঠিক করেন। লিসার গাড়ীর ভিতরে ছিল একটি ছুরি, দড়ি এবং একটি বার্থিং কিট।

১৬ ডিসেম্বর ২০০৪-এ লিসা মন্টগোমেরি স্টিনেটে এসেছিলেন, যিনি তাকে তাঁর বাড়িতে স্বাগত জানান। লিসা বনি জোকে একটি কুকুরছানা পেতে বলেছিল। এরপরে তিনি একটি দড়ি টানলেন এবং ববি জোকে গলা টিপে মারতে ব্যবহার করলেন, যখন দুটি কুকুরছানা মারা গেল। বার্থিং কিট এবং একটি ছুরি টেনে নিয়ে মন্টগোমেরি যখন বনি জো জেগেছিলেন তখন অনাগত শিশুটিকে কেটে দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হন। মন্টগোমেরি তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে তারপরে সিজারিয়ান বিভাগের মাধ্যমে শিশুটিকে উদ্ধার করে। কীভাবে করবেন সে সম্পর্কে তিনি একটি ভিডিও দেখেছিলেন এবং এটির প্রতিলিপি দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। শিশুটিকে জীবন্ত প্রসব করা হয়েছিল। এই অপরাধের ঘটনাস্থলে প্রথম পৌঁছেছিলেন শেরিফ বেন এসপেই। এসপেই বর্ণনা করেছিলেন যে স্টিনেটের পেটের মতো দেখতে এটি ফেটে গেছে। তখন নিখোঁজ শিশুর খোঁজ শুরু করেন পুলিশ।

২০০৪ সালের ডিসেম্বরে মন্টগোমেরি একটি নতুন বাচ্চা দেখিয়েছিলেন যে তিনি নিজেকে এবং তার স্বামীর বলে দাবি করেছেন। তবে শিশুটি তাদের ছিল না। ২০০ মাইল দূরে, বনি জো স্টিনেটকে খুন করা হয়েছিল, তার পেট খসখসে হয়েছে। এ ঘটনায় লিসা মন্টগোমেরি ধরা পড়ে মৃত্যুদণ্ডে দন্ডিত হন, ডেথ রো-তে কেবল তিনজন মহিলার মধ্যে একজন।

অপহরণের পর হত্যার দায় প্রমাণিত হওয়ায় ২০০৭ সালে লিসার মৃত্যুদণ্ডের রায় দিয়েছিলেন মিসৌরির একটি জেলা আদালত। তবে তার আইনজীবি কেলি হেনরির দাবি, লিসা মন্টগোমারি ছোটবেলায় নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন এবং বর্তমানে মানসিকভাবে অসুস্থ। এ কারণে তিনি বেঁচে থাকার যোগ্য। সবশেষ ১৯৫৩ সালে মিসৌরিতে গ্যাস চেম্বারে বসিয়ে বনি হেডি নামে এক নারী আসামির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছিল মার্কিন প্রশাসন।

শুক্রবার মার্কিন বিচার বিভাগ আরও জানিয়েছে, আগামী ১০ ডিসেম্বর ব্র্যান্ডন বার্নার্ড নামে আরেক ব্যক্তির মৃত্যুদণ্ডের দিন ধার্য করা হয়েছে। ১৯৯৯ সালে দুই যুব মন্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

এ দুইজনের মৃত্যুদণ্ড হতে চলেছে চলতি বছর যুক্তরাষ্ট্রে অষ্টম ও নবম মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের ঘটনা। গত জুলাইয়ে প্রায় ১৭ বছরের বিরতি ভেঙে আবারও মৃত্যুদণ্ড কার্যকর শুরু করেছে ট্রাম্প প্রশাসন। সবশেষ ২০০৩ সালে ব্যবহৃত তিনটি ওষুধের মিশ্রণে মৃত্যুদণ্ডের বদলে মাত্র একটি বিষাক্ত ওষুধ ব্যবহারের নীতিও চালু করেছে তারা।

(বিপি/এসপি/অক্টোবর ১৮, ২০২০)