ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

প্রচ্ছদ » প্রবাসের চিঠি » বিস্তারিত

মালদ্বীপে বাংলাদেশ মিশনে বঙ্গমাতার ৯৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন

২০২৩ আগস্ট ০৮ ১৮:০৪:৫৩
মালদ্বীপে বাংলাদেশ মিশনে বঙ্গমাতার ৯৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন

মোহাম্মদ মাহামুদুল, মালদ্বীপ : "সংগ্রাম-স্বাধীনতা, প্রেরণায় বঙ্গমাতা" প্রতিপাদ্য নিয়ে বাংলাদেশ হাইকমিশন মালদ্বীপ কর্তৃক আজ মঙ্গলবার সকাল দশটা ত্রিশ মিনিটে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিব-এর ৯৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন করেছে মালদ্বীপে বাংলাদেশ মিশন।

পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করা হয়।এর পরে বাংলাদেশ থেকে রাষ্ট্রপতি ও প্রধান মন্ত্রীর পাঠানো বাণী পাঠ করেন শোনানো হয় বানী পাঠ করেন যথাক্রমে মিশনের কাউন্সেলর (শ্রম) ও চ্যান্সারী প্রধান মো: সোহেল পারভেজ এবং তৃতীয় সচিব চন্দন কুমার সাহা।

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মালদ্বীপে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার রিয়ার এডমিরাল এস এম আবুল কালাম আজাদ।

প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যের শুরুতে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯৩তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে তাঁর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান। তিনি বলেন, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব বাঙালির অহংকার, নারী সমাজের প্রেরণার উৎস। শৈশব থেকেই তিনি ছিলেন সাহসী ও দৃঢ়চেতা। তিনি কেবল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মিণীই ছিলেন না, বাঙালির মুক্তিসংগ্রামেও তিনি ছিলেন অন্যতম কান্ডারী। বঙ্গবন্ধুর দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবন ছিলো আন্দোলন-সংগ্রামের। মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় বার বার তাকে যেতে হয়েছে কারাগারে। আর সেই সময়ে সবকিছু শক্তহাতে যিনি সামলে নিয়েছেন, তিনি জাতির পিতার সহধর্মীনী বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেসা মুজিব। মান্যবর হাইকমিশনার ৬ দফা আন্দোলন, গন অভ্যুত্থান, ৭মার্চের ভাষণ, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধুর সিদ্ধান্ত গ্রহনের পিছনে বঙ্গমাতার গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শের কথা উল্লেখ করেন।

তিনি আরও উল্লেখ করেন ১৯৩০ সালের ৮ আগস্ট গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব নিজের ত্যাগ আর রাজনৈতিক দূরদর্শীতার দীক্ষায় মানুষের শ্রদ্ধা-ভালোবাসার স্থান পেয়েছেন।

আলোচনা পর্বে প্রবাসী বাংলাদেশীদের পক্ষ থেকে মো: দুলাল মাতবর বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিব –এর উল্লেখযোগ্য কর্মকান্ড ও গুনাবলী নিয়ে আলোচনা করেন। অত:পর বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিব –এর জীবনের উপর ভিত্তি করে নির্মিত একটি প্রামণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

অত:পর বঙ্গমাতা ও বঙ্গবন্ধু পরিবারের শহিদ সদস্যদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। সবশেষে বঙ্গমাতার জন্মদিনে কেক কাটা ও আপ্যায়নের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মালদ্বীপ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. দুলাল হোসেন,মালদ্বীপ আওয়ামিলীগ এর সিনিয়র সহ সভাপতি হাজি সাদেক, সহ সভাপতি, মনির হোসেন,যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, নুরে আলম রিন্টু, সাইফুল ইসলাম, গাজি সাদেক, গাজি জাহিদ, নুরে আলম ভূইয়া সহ মিশনের কর্মচারীগন।

(এম/এসপি/আগস্ট ০৮, ২০২৩)