ঢাকা, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১

প্রচ্ছদ » রাজনীতি » বিস্তারিত

‘সংবিধান ধর্মীয় গ্রন্থ নয় যে পরিবর্তন করা যাবে না’

২০২৩ সেপ্টেম্বর ১৬ ১৭:১৮:২৩
‘সংবিধান ধর্মীয় গ্রন্থ নয় যে পরিবর্তন করা যাবে না’

স্টাফ রিপোর্টার : ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নিজেদের সুবিধামতো সংবিধান পরিবর্তন করে জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়েছে মন্তব্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, তারা এখন সংবিধানের দোহাই দিয়ে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন করে আবারও ক্ষমতায় থাকতে চায়। কিন্তু সংবিধান পরিবর্তনশীল, এটা কোনো ধর্মীয় গ্রন্থ নয়।

খালেদা জিয়ার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক দল আয়োজিত ‘সংকট সমাধানে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিকল্প নেই’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন তিনি।

আমীর খসরু বলেন, ‘সংবিধান পরিবর্তনশীল, এটা স্থায়ী কিছু না। সংবিধান কোনো ধর্মীয় গ্রন্থ নয়। জনগণের চিন্তার প্রতিফলন সংবিধান। আওয়ামী লীগ সংবিধানের এক-তৃতীয়াংশ পরিবর্তন করে বলছে সংবিধান কোনোদিন পরিবর্তন হবে না।’

সংবিধান জাতীয় ঐকমত্য বা গণভোটের মাধ্যমে পরিবর্তন হতে পারে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সংবিধানের ৭ ধারায় স্পষ্ট বলা হয়েছে সংবিধান হচ্ছে জনগণের ইচ্ছার প্রতিফলন। যখন জাতীয় পার্টি, আওয়ামী লীগ, জামায়াতে ইসলাম মিলে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি তুলেছিল তখন বাংলাদেশের শান্তি, শৃঙ্খলা, গণতন্ত্র, উন্নয়ন বজায় রেখে বেগম খালেদা জিয়া সংসদে তত্ত্বাবধায়ক সরকার বিল পাস করেছিল। জাতীয় ঐকমত্যের ভিত্তিতে এটা হয়েছিল। কিন্তু আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে এককভাবে এটা পরিবর্তন করেছে।’

বিচার বিভাগ সংবিধানের সুরক্ষা দিতে ব্যর্থ হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, বিচার বিভাগের মূল দায়িত্ব হচ্ছে সংবিধান, আইনের সুরক্ষা করা। তার কোনোটাই কি তারা করছে? এটা না করে বিচার বিভাগের একটি অংশ রাজনীতিবিদের দায়িত্ব পালন করছে।

বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘আজকে পুলিশ, বিচার বিভাগ, সরকারি কর্মকর্তা, লুটেরা ব্যবসায়ী ও রাজনীতিবিদদের একটি অংশ মিলে একটি রেজিম তৈরি করেছে। নির্বাচনে আমাদের প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ নয়। আমাদের প্রতিদ্বন্দ্বী এ অংশগুলো। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় নেই। মূলত শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এ অংশগুলো ক্ষমতা চালাচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সংবিধানের উসিলায় আওয়ামী লীগ ভোটচুরির প্রকল্প চালিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশে শুধু ভোটের দিন ভোট চুরি হয় না, সারাবছর ধরেই ভোটচুরির প্রকল্প চলে।’

মিথ্যা ও গায়েবি মামলাও এ প্রকল্পেরই অংশ জানিয়ে আমীর খসরু বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠিয়ে দিতে হবে, তারেক রহমানকে মিথ্যা মামলায় বিদেশ পাঠিয়ে দিতে হবে কারণ এদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা আওয়ামী লীগের পক্ষে সম্ভব না। বিএনপির ৪০ থেকে ৫০ লাখ নেতাকর্মীকে গায়েবি মামলা দিয়ে জেলে পাঠাতে হবে, কারণ তাদের যে গণতান্ত্রিক স্পৃহা আছে তা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে নেই।’

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি হুমায়ুন কবির বেপারীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম ও সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা।

(ওএস/এএস/সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২৩)