ঢাকা, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

প্রচ্ছদ » প্রবাসের চিঠি » বিস্তারিত

যুক্তরাষ্ট্র আ.লীগ সভাপতির চিঠির জবাব

মার্কিন ভিসানীতি নিয়ে নতুন করে ভাবছেন বাইডেন

২০২৩ অক্টোবর ০৬ ১৬:৪২:২২
মার্কিন ভিসানীতি নিয়ে নতুন করে ভাবছেন বাইডেন

ইমা এলিস, নিউ ইয়র্ক : ঢাকাস্থ মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বাংলাদেশের আভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে অযাচিত হস্তক্ষেপসহ ভিসানীতি ও নিষেধাজ্ঞার সংক্রান্ত বিষয় তুলে ধরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কাছে একটি চিঠি পাঠিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান। বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে বিষয়টি তদন্তের আহবান জানান। বিষয়টি ভেবে দেখছেন বলে আশ্বাস দেন বাইডেন।

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান জানান, বাংলাদেশের চলমান ঘটনাবলির ওপর নানা বিষয় তুলে ধরে প্রায় ১ সপ্তাহ আগে তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কাছে একটি চিঠি পাঠান। অনলাইনে চিঠি পাঠাতে প্রথমে সমস্যা দেখা দেয়। পরে হোয়াইট হাউজ থেকে চিঠি লেখার একটা ফরমেট পাঠানো হয় তাকে। পরে তিনি উক্ত ফরমেট ফলো করে ৩/৪ প্যারার একটি লিখেন প্রেসিডেন্ট বাইডেনকে। চিঠিতে ঢাকাস্থ মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বাংলাদেশের আভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে অযাচিত হস্তক্ষেপসহ ভিসানীতি ও নিষেধাজ্ঞার সংক্রান্ত বিষয় তুলে ধরেন। গত বুধবার (৪ অক্টোবর) সেই চিঠির উত্তর পাঠিয়েছেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন।

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সভাপতির চিঠির জবাবে বাইডেন লিখেন, মার্কিন ভিসানীতি ও নিষেধাজ্ঞার সংক্রান্ত যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানের পাঠানো একটি চিঠির জবাবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, মার্কিন পররাষ্ট্র নীতি হল সমস্ত আমেরিকানদের জীবনকে আরও ভাল ও নিরাপদ করে তোলা। বাংলাদেশের বিষয় নিয়ে আপনার প্রেরিত বিষয়গুলো আমি মনে রাখবো। আগামীতে এ বিষয় নিয়েও কাজ করবো। আমরা সামনের চ্যালেঞ্জ ও সুযোগগুলো মোকাবেলা করার জন্য কাজ করি, যা আগামী প্রজন্মের জন্য আমাদের বিশ্বের দিক নির্দেশনা নির্ধারণ করবে।
একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তুলে ধরার জন্য ড. সিদ্দিকুর রহমানকে ধন্যবাদ জানিয়ে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেন, মার্কিন পররাষ্ট্র নীতি সম্পর্কে আমাকে লেখার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

আমি বিশ্বাস করি যে আমাদের পৃথিবী একটি পরিবর্তনের বিন্দুতে রয়েছে। বড় বৈশ্বিক শক্তিগুলির মধ্যে প্রতিযোগিতা বাড়ছে যখন আমরা যে হুমকিগুলির মুখোমুখি হচ্ছি তা আগের চেয়ে আরও বেশি সহযোগিতার দাবি রাখে। এ কারণেই আমার প্রশাসন আমাদের জাতির গুরুত্বপূর্ণ স্বার্থকে এগিয়ে নিতে, বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে, গণতন্ত্র রক্ষা করতে এবং আমাদের বিশ্বের ভবিষ্যত গঠনের জন্য কৌশলগত প্রতিযোগিতায় জয়ী হতে বিশ্বজুড়ে মিত্র ও অংশীদারদের সাথে কাজ করছে।

তিনি বলেন, আমরা আন্তর্জাতিক মঞ্চে আমেরিকান নেতৃত্বকে পুনরুদ্ধার করেছি এবং সর্বত্র মানুষের জীবনকে প্রভাবিত করে এমন ভাগ করা চ্যালেঞ্জগুলি গ্রহণ করার জন্য বিশ্বকে সমাবেত করেছি। জলবায়ু সংকট মোকাবেলা এবং বিশ্ব স্বাস্থ্যকে শক্তিশালী করা থেকে দুর্ভিক্ষ প্রতিরোধ, দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই করা এবং প্রযুক্তি গণতন্ত্রের জন্য কাজ করে তা নিশ্চিত করা। এটা কারো বিরুদ্ধে নয়। আমরা ইউক্রেনের সাহসী জনগণের পাশে দাঁড়ানোর জন্য একটি বৈশ্বিক জোটের নেতৃত্ব দিচ্ছি কারণ তারা রাশিয়ার নৃশংস আগ্রাসনের বিরুদ্ধে নিজেদের রক্ষা করছে। যখন আমরা স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব এবং গণতন্ত্রের আমাদের মৌলিক নীতির প্রচার চালিয়ে যাচ্ছি, আমরা ইরান এবং উত্তর কোরিয়ার উস্কানিমূলক আচরণ সহ বৈশ্বিক শান্তি ও নিরাপত্তার হুমকি মোকাবেলার জন্য নতুন উপায়ে অংশীদারদের একত্রিত করেছি।

এখন আমাদের অবকাঠামো এবং উৎপাদনে প্রজন্মের বিনিয়োগের জন্য ধন্যবাদ। আমরা নিশ্চিত করেছি যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র উদ্ভাবনে বিশ্বকে নেতৃত্ব দিতে থাকবে। আমরা আমাদের সেনাবাহিনীকে শক্তিশালী করছি আজকের এবং আগামীকালের হুমকির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ও প্রতিরক্ষার জন্য। আমাদের মিত্র ও অংশীদারদের অতুলনীয় নেটওয়ার্ককে কাজে লাগানোর ক্ষেত্রে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র গণপ্রজাতন্ত্রী চীনসহ সব জায়গার সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে এবং সফল হয়েছে।

দিনের শেষে, আমাদের পররাষ্ট্র নীতি হল সমস্ত আমেরিকানদের জীবনকে আরও ভাল এবং নিরাপদ করে তোলার বিষয়ে। আমি আপনার বার্তাটি মনে রাখব যখন আমরা সামনের চ্যালেঞ্জ এবং সুযোগগুলি মোকাবেলা করার জন্য কাজ করি যা আগামী প্রজন্মের জন্য আমাদের বিশ্বের দিক নির্দেশনা নির্ধারণ করবে। ঈশ্বর আমেরিকাকে আশীর্বাদ করুন এবং ঈশ্বর আমাদের সৈন্যদের এবং যারা ক্ষতির পথে সেবা করছেন তাদের রক্ষা করুন।

(আইএল/এসপি/অক্টোবর ০৬, ২০২৩)