ঢাকা, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

প্রচ্ছদ » রাজনীতি » বিস্তারিত

‘নির্বাচনী মুডে আছি, কেউ বাধাগ্রস্ত করতে পারবে না’

২০২৩ নভেম্বর ১৯ ১৯:০৩:২৬
‘নির্বাচনী মুডে আছি, কেউ বাধাগ্রস্ত করতে পারবে না’

স্টাফ রিপোর্টার : পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছেন, আমরা এখন নির্বাচনী পরিবেশ বা ইলেকশন মুডে চলে এসেছি। সেদিকে আমরা মনোযোগ দিতে চাই। আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, তফসিল ঘোষণার পরে যে উৎসাহ উদ্দীপনা আমরা দেখেছি, এই নির্বাচনকে কেউ-ই বাধাগ্রস্ত করতে পারবে না। বরং যারা এই নির্বাচনী যাত্রায় অংশ না নেবে, তারা গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রার অংশ হবে না।

রবিবার (১৯ নভেম্বর) ‘নির্বাচন এবং গণতন্ত্র: দক্ষিণ এশিয়ার প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

জাতীয় প্রেসক্লাবে তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে এই সেমিনারের আয়োজন করে আইডিডিবি।

সেমিনারে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, আমরা আশা করব, নির্বাচনে সব রাজনৈতিক দল অংশ নেবে। কিন্তু দিন শেষে আমরা কারো জন্য অপেক্ষা করব না। কারণ, গণতন্ত্র একটি লম্বা যাত্রা এবং এই যাত্রায় সহযাত্রীদের মধ্যে মিল না থাকলে, সহযাত্রী যদি সহযোগিতা না করে, তবে বেশিদূর যাওয়া যায় না।

বিএনপির সমালোচনা করে তিনি বলেন, বিএনপির সময়ে বাংলাদেশকে যেভাবে জঙ্গিবাদের রাজধানী বানানোর চেষ্টা করা হয়েছিল, তারই ধারাবাহিকতায় ভারতের একজন বিদ্রোহী নেতা ঢাকার সিটি করপোরেশন নির্বাচনের কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছিলেন। নির্বাচিত হয়ে তিনি পাকিস্তানে গিয়েছিলেন পরামর্শ করতে।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, অতীতে বিএনপির নির্বাচন বর্জনের সিদ্ধান্ত দেশে-বিদেশে এমনকি তাদের ‘বিদেশি প্রভুরাও’ ব্যাপক সমালোচনা করেছেন। বিএনপির কিছু সমর্থক গভীরভাবে হতাশ এবং তারা দলের অগণতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গিতে কোনো ভবিষ্যৎ দেখতে পাচ্ছে না।

তিনি বলেন, সাউথ এশিয়া নিয়ে কথা বলতে গেলে বলতেই হয়, আমরা শত বছরের বেশি সময় ধরে বিভিন্ন উপনিবেশ দ্বারা শাসিত হয়েছি। ফলে বিদেশিদের হস্তক্ষেপ ছাড়া আমরা চলতে পারি না, বলতে পারি না, কাজ করতে পারি না - এটা আমাদের জিনের মধ্যে ঢুকে গেছে। কিন্তু আমরা সাবকন্টিনেন্ট দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র। আমাদের গণতন্ত্রের অন্যতম মূল উপাদান নির্বাচন।

তিনি আরও বলেন, যারা এখন গণতন্ত্র, মানবাধিকার নিয়ে কথা বলেন তারা আমাদের থেকে অর্থনৈতিক ও প্রযুক্তিগত দিক থেকে অনেক এগিয়ে। তাদের নির্বাচন নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সম্পাদক শ্যামল দত্তের সঞ্চালনায় সেমিনারে আরও বক্তব্য রাখেন এডিটরস গিল্ডের সভাপতি ও ৭১ টিভির এডিটর ইন চিফ মোজাম্মেল বাবু, ভারতের জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি গৌতম লাহিড়ী, ইউজিসির সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আব্দুল মান্নান।

(ওএস/এসপি/নভেম্বর ১৯, ২০২৩)