ঢাকা, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০

প্রচ্ছদ » মুক্তচিন্তা » বিস্তারিত

বাংলাদেশে নির্বাচন ও গণতন্ত্র

বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি ও ভোট দানের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা উন্মোচন

২০২৩ ডিসেম্বর ০১ ১৬:৫২:১৯
বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি ও ভোট দানের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা উন্মোচন

দেলোয়ার জাহিদ


বাংলাদেশের আসন্ন জাতীয় পরিষদের নির্বাচন আগামী ৭ জানুয়ারী নির্ধারিত হয়েছে, সুশীল সমাজ এবং কূটনৈতিক মহল এটিকে একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা হিসাবে দেখছে। তবে নির্বাচনটি রাজনৈতিক ল্যান্ডস্কেপের একটি চূড়ান্ত অধ্যায় নয় এমন গুজব, জল্পনা-কল্পনা মাঠে রয়েছে , এ নির্বাচনকে মূলত সংবিধান রক্ষার একটি আনুষ্ঠানিকতা হিসেবে দেখা হচ্ছে। ওই মহলের প্রচলিত বিশ্বাস হচ্ছে সত্যিকারের অর্থে পরবর্তীতে আবারো একটি নতুন নির্বাচন হবে। নির্বাচনের আগে, বিভিন্ন মহল থেকে সমঝোতার যে চেষ্টা করা হয়েছিল, সেই প্রচেষ্টা গুলি একে একে সব ব্যর্থ হয়েছে। বিদেশী কূটনীতিকরা কোনো বাধা ছাড়াই ২৯ জানুয়ারির মধ্যে বাংলাদেশে নির্বাচন অনুষ্ঠানের সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার ওপর জোর দেন। কিছু মহলের যুক্তি হলো যে পশ্চিমা দেশগুলি নির্বাচনকে বাধা দিচ্ছে না, কারণ এটি সংবিধান সমুন্নত রাখার জন্য গুরুত্বপূর্ণ হিসাবে বিবেচিত হয়। কখন একটি নির্বাচনকে বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচনের মর্যাদা দেয়া হবে এ নিয়ে বিতর্ক হতে পারে তবে এর জন্য কিছু বিষয় বিশ্লেষণের দাবি রাখে।

নির্বাচন গণতান্ত্রিক সমাজের ভিত্তি হিসাবে দাঁড়ায়, নাগরিকদের সক্রিয়ভাবে তাদের জাতির গতিপথকে রূপ দিতে সক্ষম করে। যাইহোক, গণতন্ত্রের স্বাস্থ্যের প্রকৃত পরিমাপ ব্যালট কাস্টিং আইনের বাইরে প্রসারিত; এটি ন্যায্যতা, স্বচ্ছতা, অন্তর্ভুক্তি এবং জবাবদিহিতার নীতিগুলি যত্ন সহকারে আনুগত্যের মধ্যে রয়েছে। এই নীতিগুলি প্রতি এই অঙ্গীকারই আন্তর্জাতিক মঞ্চে এবং আইনের সীমার মধ্যে একটি বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন আলাদা করে। যখন আমরা নির্বাচনী প্রক্রিয়ার বৈধতা ক্ষেত্রে অবদান রাখে এমন জটিল বিষয়গুলোর অন্বেষণ করি, তখন ভোটারদের ভোটদান দ্বারা পরিচালিত মুখ্য ভূমিকার উপর একটি স্পটলাইট উজ্জ্বল ভাবে আলোকিত হয়।

বিশ্বাসযোগ্যতার স্তম্ভ: ভোটার, একটি নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী যোগ্য ভোটারদের শতাংশ হিসাবে সংজ্ঞায়িত, একটি জাতির নাগরিক ব্যস্ততার ব্যারোমিটার এবং এর গণতান্ত্রিক ভিত্তি শক্তি হিসেবে দাঁড়ায়। যদিও উচ্চ ভোটার উপস্থিতি প্রায় একটি শক্তিশালী গণতন্ত্রের চিহ্ন হিসেবে প্রচার করা হয়, এর গুরুত্ব সংখ্যাগত প্রতিনিধিত্ব কে অতিক্রম করে, বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচনের সারাংশ কে স্পর্শ করে।

সংখ্যার বাইরে গণতন্ত্র: বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচনের সারমর্ম নিহিত রয়েছে কয়েকটি মূল নীতির সিম্বিয়াসিসের মধ্যে। এর মধ্যে সর্বাগ্রে ন্যায্যতা এবং সমতা প্রতিশ্রুতি। প্রত্যেক যোগ্য ভোটারকে অবশ্যই বৈষম্যমুক্ত ভাবে অংশগ্রহণের সমান সুযোগ ভোগ করতে হবে। এটি শুধুমাত্র ভোটদানের কাজকে অন্তর্ভুক্ত করে না বরং তথ্য, ভোট দানের স্থান এবং রাজনৈতিক প্রচারণার জন্য সম্পদের অ্যাক্সেসযোগ্য তার ক্ষেত্রে প্রসারিত করে। সরকার এবং নির্বাচন পরিচালনা সংস্থাগুলি এমন একটি পরিবেশ গড়ে তোলার দায়িত্ব বহন করে যেখানে সমস্ত রাজনৈতিক অভিনেতা একটি সমান প্লেয়িং ফিল্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে।

স্বচ্ছতা: বিশ্বাসের আলো: স্বচ্ছতা বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচনের প্রাণশক্তি হিসেবে কাজ করে। ভোটার নিবন্ধন থেকে শুরু করে ব্যালট গণনা পর্যন্ত, নির্বাচনী প্রক্রিয়ার প্রতিটি পর্যায় উন্মুক্ত ও স্বচ্ছভাবে প্রকাশ করতে হবে। এর জন্য নির্বাচনী আইন ও পদ্ধতি সম্পর্কে স্পষ্ট তথ্য প্রদান করা, প্রাসঙ্গিক নথিতে জনসাধারণের প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করা এবং প্রক্রিয়া যাচাই করার জন্য স্বাধীন পর্যবেক্ষকদের আমন্ত্রণ জানানো প্রয়োজন। স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতার আন্তঃসম্পর্ক নির্বাচনী বিশ্বাসযোগ্যতার ফেব্রিকের একটি গুরুত্বপূর্ণ থ্রেড গঠন করে, নাগরিক এবং স্টেকহোল্ডারদের ক্ষমতায়ন করে নির্বাচনী কর্মকর্তা এবং অংশগ্রহণকারীদের তাদের কর্মের জন্য জবাবদিহি করতে।

অন্তর্ভুক্তি জ্বালানির বৈধতা: অন্তর্ভুক্তি এবং ব্যাপক অংশগ্রহণ বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচনের মূল ভিত্তি। লিঙ্গ, জাতি, ধর্ম, বা আর্থ-সামাজিক অবস্থা নির্বিশেষে, সমস্ত যোগ্য নাগরিকদের তাদের জাতির ভাগ্য গঠনে অংশগ্রহণের দ্ব্যর্থহীন অধিকার থাকা উচিত। অন্তর্ভুক্তিমূলক নির্বাচন শুধুমাত্র সরকারের বৈধতা শক্তিশালী করে না বরং বিভিন্ন কণ্ঠস্বরকে প্রসারিত করে এবং তাদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করার মাধ্যমে সামাজিক সংহতি ও গড়ে তোলে।

মিডিয়ার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা: একটি বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন একটি মিডিয়া ল্যান্ডস্কেপ দাবি করে যা স্বাধীন, নিরপেক্ষ ও শক্তিশালী। মিডিয়া আউটলেট গুলি, তথ্যের বাহক হিসাবে কাজ করে, রাজনৈতিক প্রার্থী, দল এবং সমস্যাগুলি সম্পর্কে জনসাধারণকে শিক্ষিত করতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সরকারগুলোকে অবশ্যই, মিডিয়া সংস্থাগুলি স্বাধীনতা রক্ষা করতে হবে, একটি বৈচিত্র্যময় এবং বহুত্ববাদী মিডিয়া পরিবেশের জন্য অনুমতি দেয় যা একটি সচেতন ভোটারদের গড়ে তোলে এবং একটি শক্তিশালী গণতান্ত্রিক বক্তৃতাকে পুষ্ট করে।

স্বাধীনতার রক্ষক: নির্বাচনী ব্যবস্থাপনা সংস্থা গুলোর স্বাধীনতা নিশ্চিত করা নির্বাচনের বিশ্বাসযোগ্যতা আরেকটি লিঞ্চপিন। নির্বাচনী প্রক্রিয়া পরিচালনা ও তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব প্রাপ্ত এই সংস্থাগুলিকে অবশ্যই রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ মুক্ত হতে হবে। একটি নিরপেক্ষ এবং যোগ্য নির্বাচনী ব্যবস্থাপনা সংস্থা জনগণের আস্থাকে অনুপ্রাণিত করে, নির্বাচনী প্রক্রিয়ার অখণ্ডতা রক্ষা করে।

আন্তর্জাতিক মান এবং আইনি কাঠামোর: বিশ্বমঞ্চ বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচনের সংজ্ঞায়িত ও সমুন্নত রাখার জন্য মানদণ্ড নির্ধারণ করে। জাতিসংঘ এবং OSCE-এর মতো সংস্থাগুলি কাঠামো প্রদান করে এবং আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকরা নির্বাচন প্রক্রিয়ার নিরপেক্ষ মূল্যায়নের অবদান রাখে। এদিকে, একটি শক্তিশালী আইনি ভিত্তি, আইনের শাসন সমুন্নত রাখা, একটি বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচনের জন্য অপরিহার্য। সুস্পষ্ট, সামঞ্জস্যপূর্ণ নির্বাচনী আইন, বিরোধ নিষ্পত্তির প্রক্রিয়া এবং একটি স্বাধীন বিচার বিভাগ নির্বাচনী প্রক্রিয়ার বৈধতা কে শক্তিশালী করে।

জনসংখ্যার একটি উল্লেখযোগ্য অংশ দ্বারা নির্বাচিত একটি সরকারকে একটি শক্তিশালী ম্যান্ডেট হিসেবে দেখা হয়, যা জনগণের ইচ্ছাকে প্রতিফলিত করে।

সমষ্টিগত দায়িত্ব এবং গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করে উৎসাহিত করার মাধ্যমে উচ্চ ভোটার উপস্থিতি সামাজিক সংহতি বৃদ্ধি করে। নাগরিক সক্রিয়ভাবে তাদের নির্বাচনী পছন্দের মাধ্যমে তাদের জাতির ভবিষ্যৎ গঠন করে এই ধারণাটিকে শক্তিশালী করে। কম ভোটার উপস্থিতি বৃহত্তর জনসাধারণের কাছে দায়বদ্ধ হওয়ার ক্ষেত্রে নির্বাচিত কর্মকর্তাদের জন্য চ্যালেঞ্জ তৈরি করে। উচ্চতর অংশগ্রহণ একটি শক্তিশালী প্রতিক্রিয়ার লুপ তৈরি করে, প্রতিনিধিদের উদ্বেগ এবং দৃষ্টিভঙ্গির বিস্তৃত পরিসর বিবেচনা করার আহ্বান জানায়। যদিও ভোটার ভোট দানের জন্য আদর্শ ভোটার, ভোটার শতাংশের জন্য কোনও নির্দিষ্ট আন্তর্জাতিক মান নেই। আন্তর্জাতিক সংস্থা এবং গণতান্ত্রিক শাসন সংস্থা গুলোর দ্বারা একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন প্রক্রিয়া নিশ্চিত করার উপর জোর দেওয়া। জাতিসংঘ মানবাধিকারের সার্বজনীন ঘোষণাপত্র সর্বজনীন এবং সমান ভোটাধিকার স্বীকৃতি দেয়। OSCE নির্বাচনের সামগ্রিক গুণমান মূল্যায়নের জন্য ভোটারদের অংশগ্রহণ একটি ফ্যাক্টর হিসাবে বিবেচনা করে।

উদাহরণ স্বরূপ সাম্প্রতিক কানাডিয়ান ফেডারেল নির্বাচনে ভোটারদের উপস্থিতি:

২০১৯ ফেডারেল নির্বাচন: ভোটার প্রায় ৬৭.০%
২০১৫ ফেডারেল নির্বাচন: ভোটার প্রায় ৬৮.৩%
২০১১ সালের তুলনায় উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি।
২০১১ ফেডারেল নির্বাচন: ভোটার প্রায় ৬১.৪%

পরবর্তী নির্বাচনের তুলনায় কম ভোটার, ও তা ওঠানামা করে অংশগ্রহণের ইঙ্গিত দেয়।

কোনো জাতি যখন তার নির্বাচনী মুহুর্তের জন্য প্রস্তুত হয়, তখন এই গণতান্ত্রিক নীতির প্রতি অঙ্গীকার অপরিহার্য হয়ে ওঠে। রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা এবং জল্পনা-কল্পনার মুখে, এই নীতির আনুগত্যই নির্বাচনী ফলাফলের বিশ্বাসযোগ্যতা এবং শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশের গণতন্ত্রের শক্তি নির্ধারণ করবে। রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ মুক্ত একটি প্রক্রিয়া নিশ্চিত করার জন্য নির্বাচনী ব্যবস্থাপনা সংস্থা গুলোর স্বাধীনতার অভিভাবকত্ব সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচনের দিকে বাংলাদেশের যাত্রা কোনো একক ঘটনা নয় বরং একটি চলমান বর্ণনার অংশ যা জাতির গণতান্ত্রিক ভাগ্যকে রূপ দেয়। রাজনৈতিক স্রোত নির্বিশেষে, এই গণতান্ত্রিক নীতি গুলি প্রতি অঙ্গীকারই মূল ভিত্তি হিসাবে রয়ে গেছে, এটি নিশ্চিত করে যে প্রতিটি নাগরিকের কণ্ঠস্বর বাংলাদেশের শাসন ব্যবস্থার স্থিতিস্থাপক এবং বিকাশমান ট্যাপেস্ট্রি অবদান রাখে।

লেখক : একজন মুক্তিযোদ্ধা, বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র রিসার্চ ফ্যাকাল্টি মেম্বার ও নির্বাহী পরিচালক, স্টেপ টু হিউম্যানিটি এসোসিয়েশন, কানাডা।