ঢাকা, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

প্রচ্ছদ » মুক্তচিন্তা » বিস্তারিত

দ্য আনসাং হিরো

বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য ক্যাপ্টেন হেমায়েত উদ্দিন বীর বিক্রমের আত্মত্যাগ

২০২৩ ডিসেম্বর ০৫ ১৬:৪২:২৫
বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য ক্যাপ্টেন হেমায়েত উদ্দিন বীর বিক্রমের আত্মত্যাগ

দেলোয়ার জাহিদ


বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে, ক্যাপ্টেন হেমায়েত উদ্দিন বীর বিক্রম নামটি স্থিতিস্থাপকতা, ত্যাগ এবং অটল দৃঢ়তার প্রমাণ হিসাবে দাঁড়িয়ে রয়েছে। ১৯৪১ সালের ৩ ডিসেম্বর গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার টুপুরিয়া গ্রামে জন্ম নেওয়া ক্যাপ্টেন হেমায়েত উদ্দিন শুধু একজন সৈনিকই ছিলেন না, ছিলেন প্রতিকূলতার মধ্যেও সাহসিকতার প্রতীক।

সেনাবাহিনীর হাবিলদার হেমায়েত উদ্দিন ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টে চাকরি করতেন। মুক্তিযুদ্ধে তার সম্পৃক্ততা একটি গভীর অবিচারের কারণে শুরু হয়েছিল -স্বদেশের উষ্ণতা ত্যাগ করে হেমায়েত উদ্দিন একটি স্পষ্ট উদ্দেশ্য নিয়ে রণাঙ্গনে যোগ দেন- যতক্ষণ না স্বদেশ স্বাধীন হয় ততক্ষণ লড়াই করা। বরিশাল, ঝালকাঠি, গোপালগঞ্জ, ফরিদপুর, মাদারীপুর, শরীয়তপুর ও বাগেরহাট জুড়ে প্রচণ্ড যুদ্ধে লিপ্ত হয়ে তার নেতৃত্বে ৫,০০০ সৈন্য বাহিনী গঠন করা হয়।

এমন একটি যুদ্ধের উত্তাপে, একটি বুলেট ক্যাপ্টেন হেমায়েত উদ্দিনের গালের এক পাশ দিয়ে বিদ্ধ হয়ে অন্য দিক দিয়ে বেরিয়ে যায়, যার ফলে তিনি আটটি দাঁত হারান এবং প্রচুর রক্তপাত হয়। যন্ত্রণাদায়ক ক্ষত সত্ত্বেও তিনি থেমে যাননি। এমনকি পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে বিজয় নিশ্চিত হয়েও অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তিনি ভেঙে পড়েননি, কিন্তু তার আস্থা ছিল অটুট।

২২শে অক্টোবর, ২০১৬, ক্যাপ্টেন হেমায়েত উদ্দিন বীর বিক্রম বীরত্ব ও ত্যাগের উত্তরাধিকার রেখে চির বিশ্রাম নেন। দুর্ভাগ্যবশত, তার নাম অনেকাংশে অজানা থেকে যায়, কারণ সত্যিকারের নায়করা প্রায় পটভূমিতে বিবর্ণ হয়ে যায় যখন অন্যরা মিথ্যা শিরোনাম দাবি করে।

এই অমিমাংসিত নায়কের গল্প স্বাধীনতার প্রকৃত মূল্য এবং ক্যাপ্টেন হেমায়েত উদ্দিনের মতো ব্যক্তিদের দ্বারা করা প্রকৃত ত্যাগের একটি মর্মস্পর্শী অনুস্মারক হিসাবে কাজ করে। বিজয়ের মাসের এই দিনে যেমন আমরা তাঁকে স্মরণ করি, তেমনি বাংলাদেশের স্বাধীনতায় তাঁর নিঃস্বার্থ অবদানের জন্য আমরা তাঁর স্মৃতিকে গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা জানাই। হেমায়েত উদ্দিনের মতো সত্যিকারের নায়কদের কখনোই ভুলে যাওয়া উচিত নয় কারণ তাদের আত্মত্যাগ আজ আমরা যে স্বাধীনতাকে লালন করি, তাদের ত্যাগ সে পথ প্রশস্ত করেছে।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন বীর ব্যক্তিত্ব ক্যাপ্টেন হেমায়েত উদ্দিন হেমায়েত সেনাবাহিনী গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। কোটালীপাড়া জহরেরকান্দি একটি প্রশিক্ষণ শিবির স্থাপন করে হেমায়েত আর্মি ফরিদপুর ও বরিশাল অঞ্চলে পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে একাধিক যুদ্ধে লিপ্ত হয়। দুঃখজনকভাবে, রামশীলের যুদ্ধের সময় ক্যাপ্টেন হেমায়েত উদ্দিন মারাত্মক আহত হন।

হেমায়েত উদ্দিনের অবদানের তাৎপর্য স্বীকার করে বর্তমান সরকার ২০১৩ সালে কোটালীপাড়া উপজেলার টুপুরিয়া গ্রামে হেমায়েত বাহিনী জাদুঘর প্রতিষ্ঠা করে। এই জাদুঘরটি মুক্তিযুদ্ধের সময় ক্যাপ্টেন হেমায়েত উদ্দিন ও তার বাহিনীর আত্মত্যাগের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাঁড়িয়ে আজো আছে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য।

লেখক: একজন মুক্তিযোদ্ধা, বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র রিসার্চ ফ্যাকাল্টি সদস্য, সভাপতি, বাংলাদেশ উত্তর আমেরিকান জার্নালিস্ট নেটওয়ার্ক, ও কানাডার বাসিন্দা।