ঢাকা, বুধবার, ১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

প্রচ্ছদ » পাশে দাঁড়াই » বিস্তারিত

ছোট ভাইকে বাঁচাতে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া বোনের আকুতি

২০২১ জুন ২৫ ১৭:১৭:২৩
ছোট ভাইকে বাঁচাতে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া বোনের আকুতি

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি : যে বয়সে সারাক্ষণ দুরন্তপনা খেলাধুলায় মত্ত থাকার কথা সে বয়সে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার দেবতলা গ্রামের শিশু আশিকুজ্জামান রাফাত (১১)। হৃৎপিন্ডের জটিলতায় শিশুটির দুটি ভালভই নষ্ট হওয়ার পথে। তার চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন ৫ লক্ষাধিক টাকা। যা তার পরিবারের পক্ষে বহণ করা অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে।

শৈলকূপা সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর মেধাবী শিক্ষার্থী রাফাত। বাবা একজন দরিদ্র কৃষক। বড় বোন রুপালি খাতুন কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের চতুর্থ বর্ষে অধ্যয়নরত। ছোট বোন রজনী খাতুন এইচএসসি পরীক্ষার্থী। এদিকে কৃষক বাবা ছাড়া তার পরিবারে উপার্জনক্ষম ব্যক্তি নেই। বাবা রজব আলী মণ্ডল ছেলের চিকিৎসার জন্য নিজের জমিটুকু বিক্রি করে দুই লক্ষ টাকা জোগাড় করেছেন। কিন্তু বাকি টাকা জোগাতে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তিনি। এমতাবস্থায় সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন রাফাতের পরিবার ও তার বড়বোনের সহপাঠীরা।

ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনের রিপোর্ট অনুযায়ী, রাফাতের হৃৎপিণ্ডের দুটি ভালভই নষ্ট হওয়ার উপক্রম। সাধারণত মানুষের হৃৎপিণ্ডের কার্যক্ষমতা ২৫ এর নিচে নামলে মানুষ বাঁচে না। অথচ হৃৎপিণ্ডের বর্তমান কার্যক্ষমতা ২৯। কর্তব্যরত চিকিৎসক বলেছেন, দ্রুত তার অপারেশনের ব্যবস্থা করতে হবে। আর অপারেশন করাতে তার অভাবী পরিবারকে গুনতে হবে ৫ লাখ টাকা।

রাফাতেরক বড় বোন রুপালি খাতুন বলেন, ‘টাকা জোগাড় করতে না পেরে শুধু ওষুধই খাওয়াচ্ছি ছোট ভাইকে। অপারেশন করাতে পারছি না। আমার পরিবার কিছু টাকা জোগাড় করেছে, কিন্তু বাকি টাকা কোথায় পাবো বুঝতে পারছি না। টাকার অভাবে ভাইকে বাঁচাতে পারবো কি না বুঝতে পারছি না। তিনি তার শিশু ভাইটির চিকিৎসার জন্য সমাজের বিত্তবানদের পাশে দাঁড়ানোর অনুরোধ করেছেন।

রাফাতকে সহায়তার জন্য ইবির ছাত্র সাহেদের ০১৭৯৮০৬০৬৭০ এই নাম্বারে যোগাযোগ করতে পারেন।

(একে/এসপি/জুন ২৫, ২০২১)