ঢাকা, রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

প্রচ্ছদ » রাজনীতি » বিস্তারিত

‘আগামী নির্বাচন কমিশন সার্চ কমিটির মাধ্যমেই হবে’

২০২১ অক্টোবর ১১ ০৯:২৪:২৯
‘আগামী নির্বাচন কমিশন সার্চ কমিটির মাধ্যমেই হবে’

স্টাফ রিপোর্টার : আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, আগামী নির্বাচন কমিশন সার্চ কমিটির মাধ্যমেই হবে। তিনি আরও বলেন, সার্চ কমিটিও আইনের কাছাকাছি। এবার এই সার্চ কমিটির মাধ্যমে নির্বাচন কমিশন গঠিত হবে। এরপর আইনে যাওয়া হবে। কারণ, ১৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে আইন করা সম্ভব নয়।

রবিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি আয়োজিত ‘মিট দ্য রিপোর্টার্স’ অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী আরও বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিয়ে আর কোনো তর্কের অবকাশ নেই। কারণ, এ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রায় আছে। আর সুপ্রিম কোর্টের রায় যখন মানা হয়, তখন নিজেদের গর্বিত মনে হয়।

বিএনপি দীর্ঘদিন ধরে নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি জানিয়ে আসছে। সেই প্রেক্ষাপটেই সাংবাদিকেরা প্রশ্ন করেন এবং উত্তর দেন আইনমন্ত্রী।

শর্ত সাপেক্ষে সরকারের নির্বাহী আদেশে মুক্তিতে থাকা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্থায়ী মুক্তি সরকারের হাতে নেই বলে জানান আইনমন্ত্রী। তিনি বলেন, এই মামলা আদালতে বিচারাধীন। মামলায় যদি জয়ী হন, তাহলে তার স্থায়ী মুক্তি হবে।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং তার পরিবারের সদস্যদের নৃশংসভাবে হত্যার ষড়যন্ত্রে জড়িত নেপথ্যের মদদদাতাদের খুঁজে বের করতে তদন্ত কমিশন গঠনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানান আনিসুল হক। তিনি বলেন, কমিশন গঠনের বিষয়ে উদ্যোগও ইতিমধ্যে নেওয়া হয়েছে। এই কমিশন হচ্ছে বিকৃত ইতিহাসকে ফেলে দিয়ে সত্য ইতিহাসকে সঠিক পথে চালিত করা এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সেটি জানানো। উচ্চ আদালতে বিচারপতি নিয়োগে অচিরেই আইন করা হবে বলেও জানান আইনমন্ত্রী।

বিচার বিভাগ পৃথক্‌করণ–সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে গত ১২ বছরের অভিজ্ঞতার কথা উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, নির্বাহী বিভাগের প্রভাব থেকে বিচার বিভাগ অনেকটাই মুক্ত।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সাংবাদিকদের জন্য করা হয়নি। যারা দেশের বাইরে বসে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করছে, তাদের বিরুদ্ধে এ আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া ইভ্যালির মতো ডিজিটাল গ্রাহক প্রতারণায় যারা জড়িত, তাদের বিরুদ্ধেও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে পদক্ষেপ নেওয়ার প্রস্তাবনাও কিন্তু দেওয়া হয়েছে।

ডিআরইউ সভাপতি মোরসালিন নোমানির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মসিউর রহমান খান। এসময় রাজারবাগ দরবার শরিফের সংবাদ প্রচার করায় সাংবাদিকদের হুমকি দেওয়া হয়েছে এমন এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, কোনো সাংবাদিককে যদি হয়রানি করা হয়, তবে তার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া হবে। হয়রানি বন্ধে যা করা দরকার, তাই করা হবে।

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যার তদন্ত ও বিচার বারবার পেছানো হচ্ছে। এ দায়িত্ব অন্য কাউকে দেওয়া যায় কি না প্রশ্ন করলে মন্ত্রী বলেন, আমাদের ফৌজদারিতে তদন্তের ভার পুলিশের হাতে। তাই তদন্ত রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত পুলিশ বা প্রধান বিচারপতির সঙ্গে আলাপের বিষয় আসছে না। তবে আপনারা যেহেতু বলেছেন, সেহেতু এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আমি আলাপ করবো।

(ওএস/এএস/অক্টোবর ১১, ২০২১)