ঢাকা, বুধবার, ২২ মার্চ ২০২৩, ৮ চৈত্র ১৪২৯

প্রচ্ছদ » দেশের খবর » বিস্তারিত

বোয়ালমারীতে পূর্ব শত্রুতার জেরে তিনজনকে কুপিয়ে জখম

২০২৩ জানুয়ারি ২৬ ১৮:৫১:২৫
বোয়ালমারীতে পূর্ব শত্রুতার জেরে তিনজনকে কুপিয়ে জখম

কাজী হাসান ফিরোজ,বোয়ালমারী : ফরিদপুরের বিজ্ঞ আদালতে হাজিরা দিয়ে বোয়ালমারী ফেরার পথে ৩ জনকে মাইক্রোবাস থেকে নামিয়ে কুপিয়ে জখম করেছে দুর্বৃত্তরা। মাঝকান্দি-ভাটিয়াপাড়া আঞ্চলিক মহাসড়কের সাতৈর ইউনিয়নের কাদিরদী ব্রিজের উপর বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে।

আহতরা হলেন- পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের গুনবহা গ্রামের আব্দুল বারিক শেখের ছেলে সবুজ শেখ (৩০), সিরাজ শেখের ছেলে আলামিন শেখ (৩০) এবং পাঁচু শেখের ছেলে ইলিয়াস শেখ (৩২)। আহতদের মধ্যে সবুজ শেখ ও আলামিন শেখকে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। পূর্ব শত্রুতার জেরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী মাইক্রোবাসের যাত্রী বাচ্চু শেখ বলেন, সবুজ শেখ, আলামিন শেখ এবং ইলিয়াস শেখসহ ৮/১০জন একটি মামলায় আদালতে হাজিরা দিয়ে ফরিদপুর থেকে বোয়ালমারী ফিরছিলেন। পথিমধ্যে মাইজকান্দি-ভাটিয়াপাড়া আঞ্চলিক মহাসড়কের সাতৈর ইউনিয়নের কাদিরদী ব্রিজের উপর পৌঁছালে মাইক্রোবাসের সামনে এবং পেছনে মোটরসাইকেলের ব্যারিকেড দিয়ে বোয়ালমারী পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ডের গুনবহা গ্রামের বাসিন্দা বিএনপি নেতা পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর ফরিদ হোসেনের ছেলে রাহুল, আব্দুল মান্নানের ছেলে জাহিদ (কাউন্সিলর ফরিদ হোসেনের ছোট ভাই) , সাত্তার শেখের ছেলে শাহিন, রহমদীর ছেলে নবীরুলের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী ওই ৩ জনকে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে জখম করে পালিয়ে যায়। পূর্ব শত্রুতার জেরে এ হামলা করা হয়।

আহতদের সাথে সাথে স্থানীয় লোকেদের সহায়তায় বোয়ালমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে নেয়া হয়। জরুরী বিভাগ থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে সবুজ ও আলামিনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে বোয়ালমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. আন্না সুলতানা বলেন, আহতদের মধ্যে দুই জনের অবস্থা গুরুতর। উন্নত চিকিৎসার জন্য ওই দুই জনকে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

বোয়ালমারী থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আব্দুল ওহাব বলেন, ঘটনা শোনার সাথে সাথেই তদন্ত শুরু করেছি এবং যারা এ ঘটনার সাথে জড়িত তাদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে। লিখিত পাওয়ার পর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

(কেএইচএফ/এএস/জানুয়ারি ২৬, ২০২৩)